peperonity Mobile Community
Welcome, guest. You are not logged in.
Log in or join for free!
 
New to peperonity.com?
Your username allows you to login later. Please choose a name with 3-20 alphabetic characters or digits (no special characters). 
Please enter your own and correct e-mail address and be sure to spell it correctly. The e-mail adress will not be shown to any other user. 
This password protects your account. To avoid typos it must be entered twice. Please enter 5-20 alphabetic characters or digits (no special characters). Choose a password that is not easy to guess! Never disclose your password to anyone. 
This password protects your account. To avoid typos it must be entered twice. Please enter 5-20 alphabetic characters or digits (no special characters). Choose a password that is not easy to guess! Never disclose your password to anyone. 
Stay logged in
Enter your username and password to log in. Forgot login details?

Username 
CAUTION: Do not disclose your password to anybody! Only enter it at the official login of peperonity.com. We will never ask for your password in a message! 
Login
Stay logged in

Share photos, videos & audio files
Create your own WAP site for free
Get a blog
Invite your friends and meet people from all over the world
All this from your mobile phone!
For free!
Get started!

You can easily invite all your friends to peperonity.com. When you log in or register with us, you can tell your friends about exciting content on peperonity.com! The messaging costs are on us.
Meet our team member Sandy and learn how to create your own mobile site!

গোপন অভিসার - একটি মা ও ছেলের কাহিনী - sexy-mother



গোপন অভিসার - একটি মা ও ছেলের কাহিনী
ঘটনাটা আমার ছেলে অর্ণব কে নিয়ে, আমার একমাত্র ছেলে অর্ণব, ডাক নাম বাবু..। গত ২ বছর ধরে ওর সাথে এমন এক ঘটনায় আমি জরিয়ে পরেছি, যার সাক্ষী কেবল আমরা মা ও ছেলে। বাবু আর আমি।
সত্যি কথা বলতে কি, আমার মতো একজন উচ্চ মধ্যবিত্ত সাধারণ নারীর জীবনে যে এমন ঘটনা ঘটে যেতে পারে...তা আমি সপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি।


আজ সেই কাহিনীই শোনাবো ...


আমার নাম অপরাজিতা বসু, ডাক নাম রীতা। থাকি মধ্য কলকাতার এক উন্নয়নশীল অঞ্চলে। উন্নয়নশীল বললাম তার কারণ.... আধুনিক কলকাতার সব সুযোগ সুবিধা একেবারে হাতের কাছে না হলেও...এক দুই পা এগোলেই তা পাওয়া যায়...। সংসারে কেবল আমরা ৩ জন। আমি, বাবু আর আমার স্বামী। স্বামী সরকারী অফিসার ..খুব বড় দায়িত্বে রয়েছে, তাই ওর বেশির ভাগ সময় কাটে অফিসে...কিন্তু তা বলে যে ও বাড়িতে ছেলে, বৌকে সময় দেয় না তা নয়..এমনকি.. বিয়ের এত বছর পরেও, এখনো প্রতি উইকেন্ডে আমরা সবাই একসাথে কলকাতার বড় বড় মল গুলোতে শপিং করতে যাই...তারপর সিনেমা দেখে, বাইরে ডিনার করে ঘরে ফিরি। আমার বয়স ৩৭ আর স্বামীর ৪২। দুজনের শরীরেই যৌবন এখনো বর্তমান। শরীরের খিদে দুজনেরই রয়েছে একে অপরের প্রতি। আমার হাইট ৫’৪, সামান্য মেদ যুক্ত শরীরে 34c সাইজের
খাড়া খাড়া স্তন দুটো, তানপুরার মতো ভারী মাংসল পাছা, পাছার সামান্য উপর অব্দি ঘন কালো চুল আর দুধে আলতা গায়ের রং দেখে আমার স্বামী এখনো সামলাতে পারে না নিজেকে। সত্যি কথা বলতে কি, নিজের শরীর নিয়ে আমার বেশ একটু অহংকারী ভাব আছে.. আর থাকাটাই স্বাভাবিক। আমার স্বামী বিয়ের এত বছর পরেও ..রোজ রাতে আমায় বিছানায় না পেলে ঘুমাতেই পারে না। আর উইকেন্ডের কথা তো বলারই নেই কিছু। কম করে ৩ থেকে ৪ বার ..বিভিন্ন রকম আসনে আমায় না করলে তার ঘুম আসে না।
মোটের উপর বেশ সুখী সংসার আমার... স্বামী ভালো রোজগার করে, আমায় শারীরিক এবং মানসিক সব দিক দিয়ে সুখে রেখেছে..ছেলে কলেজে পরে..প্রতি বছর ভালো রেজাল্ট করে ... এর চেয়ে বেশি সুখ একটা নারীর পক্ষে আর কি হতে পারে!
কিন্তু ঘটনাটা ঘটে গেলো ঝরের মতনই আমি নিজেও মা হয়েও বাধা দিতে পারিনি, অবশ্য এখন ভাবি..যা হয়েছে ভালই তো হয়েছে...নইলে তো আজ আমি এই সুখের দিনগুলিকে ... না থাক! গোড়া থেকে বলি...




সেদিন ছিলো শনিবার অর্থাৎ উইকেন্ড| প্রতিবারের মতো এই উইকেন্ডেও আমরা ৩ জন শপিং করতে এসেছিলাম কলকাতার এক নামকরা মলে| অনেক্ষণ ধরে শপিং করছিলাম, এটা ওটা কিনছিলাম, দেখছিলাম..এমন সময় আমার স্বামীর মোবাইল বেজে উঠলো... কিচুক্খুন কথা বলার পর ও জানালো .. ওর অফিসে কি একটা জরুরি কাজ এসে পরেছে.. ওকে এখুনি বেরিয়ে যেতে হবে|
আমি বললাম, ঠিক আছে অসুবিধার তো কিছু নেই...তুমি গাড়িটা নিয়ে বেরিয়ে যাও..আমি আর বাবু বরং ধীরে সুস্থে শপিং সেরে, কোনো ট্যাক্সি ধরে বাড়ি ফিরবো| বাবু ও রাজি এই প্রস্তাবে...বললো “হ্যা বাবা, তুমি কোনো চিন্তা করো না...আমি আর মা চলে যেতে পারবো|
ওর বাবা নিশ্চিন্ত হয়ে চলে গেলো তখনি গাড়িটা নিয়ে আর আমি ও বাবু অনেকখান ধরে শপিং করলাম, এটা ওটা কিনলাম.. তারপর বেশ রাত করে বেরোলাম শপিং মল থেকে, বাবু টাক্সি ভাড়া করতে টাক্সি স্টান্ডে চলে গেলো..আর আমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে অপেক্ষা করতে লাগলাম ওর জন্য|
বেশ্ কিছু সময় পর, বাবুকে দেখি মুখ কালো করে ফিরে আসছে, কাছে আসতে জিজ্ঞাসা করলাম...
কি রে কি হয়েছে.. ট্যাক্সি পাসনি?
আর বলনা মা... আজ কি একটা গন্ডগোল হয়েছে...ট্যাক্সি স্টান্ডে গিয়ে শুনি আজ ট্যাক্সি ধর্মঘট| একটাও ট্যাক্সি যেতে রাজি হলো না| কি বিপদে পরা গেলো বলত.. এ জানলে তো বাবাকে গাড়িটা রেখে যেতে বলতাম!
“সে কি! কি হবে তাহলে এখন! বাড়ি যাবো কি করে...তাছাড়া রাত ও তো কম হয়নি...”, আমি হাতঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম ১০ টা বেজে গিয়েছে|
বাবু বললো, “অসুবিধা কিছুই নেই.. বাস তো রয়েছে... কিন্তু বসে খুব ভির হবে ট্যাক্সি বন্ধ বলে..তোমার তো অভ্যাস নেই, তাই বেশ অসুবিধা হবে.. তার উপর সাথে আবার এত মাল পত্র|
“কিন্তু কি আর করা যাবে বল...বাড়িতে তো পৌঁছাতেই হবে.. এরপর রাত বেশি বাড়লে.. বাসও পাওয়া যাবে না হয়তো, তুই বাবা তারাতারি বাস স্টান্ডের দিকেই চল..আর দেরি না করে.. একদিন কষ্ট হবে না হয়|”
বাবু আর কথা না বাড়িয়ে হাটা শুরু করলো বাস স্ট্যান্ডে দিকে| কিছুক্ষণপর বেশ কষ্ট করে... ঠেলাঠেলি করে..একটা ভির বসে আমরা মা ছেলেতে উঠে পরলাম....ভেতরে একেবারে দম বন্ধ করা অবস্থা| আমি কোনরকমে ঠেলাঠেলি করে বাসের একদম সামনের দিকে গিয়ে দেওয়াল ধরে দাড়ালাম আর বাবু আমার পেছনে দাড়ালো দু হাতে মাল পত্র নিয়ে|
বাস চলতে না চলতেই ভির যেন আরো বেড়েই চললো.. পিছন থেকে অনবরত ধাক্কা আসতে লাগলো... আর বাবুর দুই হাতে ব্যাগ থাকে..ও ব্যালান্স রাখতে পারছিলো না.. বার বার আমার উপর হুমড়ি খেয়ে পরছিলো...কিন্তু তবুও যতটা সম্ভব জায়গা রাখার চেষ্টা করতে লাগলো.. আমাদের মধ্যে.. শেসে আর না পেরে.. ও ওর পিছনে দাড়িয়ে থাকা লোকদের সাথে ঝগরা শুরু করলো.. ঝগরা ও কথা কাটাকাটি ক্রমশ বেড়ে উঠছে দেখে..আমি বাবু কে থামতে বললাম একসময়..
“বাবু..কি হচ্ছে টা কি.. কেন মুখ খারাপ করছিস এদের সাথে.. তুই আরো সরে এসে দারা আমার কাছে..”..........................................চলবে



This page:





Help/FAQ | Terms | Imprint
Home People Pictures Videos Sites Blogs Chat
Top